HOME

১৮৫৭ সালে মহারানী ভিক্টোরিয়ার ঐতিহাসিক ঘোষণা অনুযায়ী ভারত বর্ষে বৃটিশ সরকারের শাসন প্রবর্তন হলে জিলা ত্রিপুরাও ব্রিটিশ শাসনাধীনে চলে যায়। ১৮৬৮ সালে সাবেক ট্রেজারীর পার্শ্বের স্থানটিতে টেকল সাহেবকে প্রথম চেয়ারম্যানরূপে পৌরসভা প্রতিষ্ঠিত হয়।

১৮৭৮ ইং সালে সাবেক ডি.এম কোর্ট থেকে সাবেক সিনিয়র সহকারী জজ আদালত পর্যন্ত দালানটিতে কোর্টরূপে বিচার কার্য চালু করা হয়। তারপর সাবেক ডি.সি অফিসের দোতলা স্থানটিতে ১৫ হাত লম্বা ৮ হাত প্রস্থ একটি একতালা ট্রেজারী দালান নির্মাণ করা হয়। আদালত প্রতিষ্ঠা করে ছাত্রবৃত্তি পাশা বাবু দীনবন্ধু দত্ত, রাম কানাই দত্ত, জনাব দৌলত খান মুন্সী কমিটি পাশ এবং কামিনী কুমার ভট্টাচার্য, উমানাথ দত্ত, কৈলাস দেব রায়, নরেষ চন্দ্র নন্দী আইন বিষয়ে বি.এল. ডিগ্রী অর্জন করে আইনজীবী হিসেবে আইন ব্যবসা শুরু করেন। আইনজীবী হিসেবে আগরতলা হতে যোগদান করেন ভারত চন্দ্র ভট্টাচার্য এবং কাশীনাথ ভট্টাচার্য।

উল্লিখিত ৯ জনের সঙ্গে আরও কতিপয় আইনজীবী (তারা কমিটি পাশ না বি.এল জানা যায়নি) আইন ব্যবসায় যোগদান করেন। ঐ সমস্ত আইনজীবীগণের বসায় ভয়ানক অসুবিধা লক্ষ্যে বিদ্যাকুটের ভারত চন্দ্র বিদ্যানিধি, সুলতানপুরের রাম কানাই দত্ত, চুইন্টার মহেশ চন্দ্র দেব, কালীকচ্ছে জগত চন্দ্র নন্দী, চারাগাছের অখিল চন্দ্র দত্ত, তারাগণের দৌলত খান মন্সুী, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার দ্বারিকা নাগ দত্ত, সুলতানপুরের বিপিন চন্দ্র দত্ত, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার হালদার পাড়া অম্বিকা হালদার, কালীকচ্ছের অর্পূব কাঞ্চন নন্দী, ব্রাহ্মণবাড়িয়া ফুলবাড়িয়ার উমাচরণ নাগ, কালীকচ্ছের মহিম চন্দ্র ভট্টাচার্য, শিমরাইল কান্দির নীলকান্ত দাস, নাটাই গ্রামের কৈলাস চন্দ্র দেব-স্বনামধন্য আইনজীবীগণ সাবেক আইনজীবী ভবনের দালানের জায়গাটি খরিদ করে কিছু দিনের মধ্যেই তথায় একটি ছনের ঘর নির্মান করে ১৮৮৭ ইং সালের ফেব্রুয়ারী মাসের মাঝামাঝি সময়ে আমাদের অত্র ব্রাহ্মণবাড়িয়া আইনজীবী সমিতির প্রতিষ্ঠা করেন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আইনজীবী সমিতির ২৬ মার্চ স্বাধীনতা দিবস পালন।

চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত, ব্রাহ্মণবাড়িয়া